সুনামগঞ্জে ভাবির সঙ্গে অভিমান করে দেবরের 'আত্মহত্যা'


ডেস্ক রিপোর্ট : সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে জাহাঙ্গীর আলম নামে এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিবারের দাবি ওই যুবক তার ভাবির সঙ্গে অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে। বুধবার দুপুরে তার লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। 

নিহত জাহাঙ্গীর আলম উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের আনোয়ারপুর গ্রামের মৃত ফুল মিয়ার ছেলে। 

নিহতের পারিবার জানায়, সোমবার বিকালে ভাবি (বড়ভাই আলমগীরের স্ত্রী) রুমেনা আক্তারের সঙ্গে দেবর জাহাঙ্গীরের কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে রুমেনা জাহাঙ্গীরের গায়ে হাত তুলেন। ঘটনা মীমাংসা না হওয়ায় জাহাঙ্গীর অভিমান করে বাড়ি থেকে চলে যান। মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত তার ফোনে বারবার চেষ্টা করেও কোনো সাড়া মেলেনি। 

এদিকে নিহতের মা ও তার স্ত্রী জাহানারা বেগম গ্রামে অনেক খোঁজাখুঁজির পর মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে জাহাঙ্গীরের ফোনে রিং শুনতে পান। এ সময় অনেক ডাকাডাকির পর নিজ বাড়ির পুকুরের পশ্চিমপাড়ে আমগাছে গলায় কাপড় পেঁচানো জাহাঙ্গীরের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান পরিবারের লোকজন। 

মঙ্গলবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর মডেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। 

নিহতের মা আছিয়া বেগম বলেন, জাহাঙ্গীর অভিমান করেই আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে। 

দোয়ারাবাজার থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুজ্জামান খান বলেন, জাহাঙ্গীর আলম ভাবি রুমেনা আক্তারের সঙ্গে অভিমান করেই আত্মহত্যা করেছে বলে তার পরিবারের লোকজন আমাদের জানিয়েছেন।