সুনামগঞ্জে কালবৈশাখী ঝড়ে নিহত ৫


ডেস্ক রিপোর্ট : সুনামগঞ্জে কালবৈশাখী ঝড়ে গাছের নিচে চাপা পড়ে এবং বজ্রপাতে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। জেলার জগন্নাথপুর উপজেলায় কালবৈশাখী ঝড়ে গাছচাপায় একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া শাল্লা উপজেলায় বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন বাবা ও ছেলে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন শিশুসহ আরো দু’জন। 

বৃহস্পতিবার ভোরে এ ঘটনা ঘটে। 

এছাড়া সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় ঝড় বয়ে যাওয়ায় শতাধিক ঘরবাড়ি-গাছপালা বিধ্বস্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। 

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ভোররাতে কালবৈশাখী ঝড়ে গাছের নিচে চাপা পড়ে একই পরিবারের তিনজন নিহত হয়েছেন। তারা হলেন উপজেলার পাটলি ইউনিয়নের সোলেমানপুর গ্রামের মোহাম্মদ হোসেন (৪০), তার স্ত্রী মাহিমা আক্তার (৩৫) ও তাদের সন্তান মৌসুমি বেগম (৪)। 

এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। 

জগন্নাথপুর থানার ওসি শশাঙ্ক পাল কালবৈশাখী ঝড়ে একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

এদিকে সকাল ৭টার দিকে সুনামগঞ্জের শাল্লায় বজ্রপাতে বাবা ও ছেলে নিহত হয়েছেন। তারা হলেন উপজেলার শাল্লা ইউনিয়নের নাছিরপুর গ্রামের মুকুল খাঁন (৫০) ও তার ছেলে মাসুদ খাঁন (৭)।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ভোরবেলা নাছিরপুর গ্রামের মুকুল খাঁন, তার দুই ছেলে ও শ্যালকপুত্রকে নিয়ে বাড়ির পাশে হাওরে কৃষি কাজ করতে যান। সকাল ৭টায় হঠাৎ কালবৈশাখী ঝড়ের সাথে বজ্রপাতের কবলে পরে মুকুল খাঁন ও ছেলে মাসুদ খাঁন ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এসময় মুকুল খাঁনের আরেক ছেলে রিমন খাঁন (১১) ও শ্যালকপুত্র তানভীর হোসেন (৭) আহত হন। তাদের চিকিৎসার জন্য হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়েছে। 

এ বিষয়ে শাল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার জানান, সকালে বাড়ির পাশের হাওরের জমিতে কাজ করার সময় হঠাৎ বজ্রপাতের কবলে পরে এ হতাহতের ঘটনাটি ঘটে। 

শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম নাছিরপুরে বজ্রপাতে বাবা-ছেলে নিহতের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। 

এছাড়াও সুনামগঞ্জ সদর জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা, তাহিরপুর, দিরাই উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখীতে শতাধিক ঘরবাড়ি-গাছপালা বিধ্বস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।