হিজাবে উচ্ছ্বসিত বিশ্বকাপে আসা পশ্চিমা নারীরা


ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় আসর ফুটবল বিশ্বকাপের আসর বসেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারে। বিশ্বকাপ শুরুর আগেই অনেক নিয়মনীতি আলোচনায় এসেছে। তবে কাতারে এসে জীবনে প্রথমবারের মতো হিজাব পরার বিস্ময়কর অনুভূতি জানিয়েছেন অনেক নারী দর্শক।

ফুটবল দেখতে আসা নারী দর্শকদের হিজাব পরার অনুভূতি জানাতে কাজ করছেন মুসলিম স্বেচ্ছাসেবকরা। তারা তাদেরকে হিজাব পরতে সহযোগিতাও করছেন। এমন বিভিন্ন ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে।

মুসলিম স্বেচ্ছাসেবক তাসনিফ নাফে আলজাজিরা মুবাশিরকে বলেন, ‘সব সংস্কৃতির প্রতি ইতিবাচক মনোভাব তৈরি করতে অনেক নারীর হিজাব পরার অভিজ্ঞতা হয়। তাদের অনেকে এবারই প্রথম হিজাব পরেছেন।’

এই উদ্যোগে শুরুতে অংশ নেওয়া নারীর সংখ্যা কম হলেও এখন তা বাড়ছে। অনেক নারী এমন কাজ করে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন। যদিও ইসলাম হিজাবকে পোশাকের একটি বাধ্যতামূলক বিধি হিসেবে দেখে, কোনো ধর্মীয় প্রতীক হিসেবে নয়।

গ্লোবাল ফুটবল ইভেন্টের আয়োজক হওয়ার সময় কাতার দর্শনার্থীদের কাছে ইসলামকে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য বেশ কয়েকটি উদ্যোগ চালু করেছে। উদাহরণস্বরূপ, হোটেল ও গেস্ট-রুমগুলোতে কিউআর কোড যুক্ত করেছে যা দর্শকদের ইসলাম এবং কাতারি সংস্কৃতির সঙ্গে সমস্ত ভাষায় পরিচয় করিয়ে দেয়।

এছাড়া রাস্তার দেয়ালে কুরআন ও হাদিসের বানী বিভিন্ন ভাষায় লেখা রয়েছে। মসজিদগুলোতে ইসলামের বিষয়ে জানার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিভিন্ন দেশ ও সংস্কৃতি থেকে আসা ফুটবল দর্শকরা কাতারে বিভিন্ন স্থানে এভাবে ইসলামের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছেন।