প্রিয় বাবা


ফাহিম আহমদ : বাবা শব্দটার সাথে পৃথিবীর আর কোন কিছুর তুলনা হয়না। বাবা তো বাবাই। যিনি শত শাসন করলেও বুকে আগলে রাখেন। পরম স্নেহ, মায়া, মমতায় ভরপুর করে রাখেন। কখনো নিজে শত কষ্ট পেলেও সন্তানকে কষ্ট দিতে দেননা। 

আজ ২০ জুন। বিশ্ব বাবা দিবস। জুন মাসের তৃতীয় রবিবার বিশ্বের প্রায় ৭৪টি দেশে বাবা দিবস পালিত হয়। ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৯০৮ সালে প্রথম বাবা দিবস উদযাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। ১৯৬৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট লিন্ডন বি জনসন জুন মাসের তৃতীয় রবিবারকে আনুষ্ঠানিকভাবে বাবা দিবস হিসেবে নির্ধারণ করেন। ১৯৭২ সালে প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন প্রতি বছর জাতীয়ভাবে বাবা দিবস পালনের রীতি চালু করেন।

আজ এই বিশ্ব বাবা দিবসে যাদের বাবা বেঁচে আছেন দোয়া করি সারাজীবন সন্তানদের পাশে বট বৃক্ষের ছায়ার মত বেঁচে থাকুন। আর যাদের বাবা নেই আল্লাহ যেন তাদেরকে জান্নাতবাসী করেন। আসলে বাবাদের জন্য কোন দিবসের প্রয়োজন হয় না। বাবারা সব সময়ই একটি দিবস৷ একজন বাবা যতই খারাপ হোন না কেন সন্তানদের জন্য তিনি সব সময় হিরো। রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করেও সন্তানদের মানুষ করার জন্য বাবাই তো প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করে থাকেন। সন্তানকে কি ভাবে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে মানুষের মত মানুষ করা যায়, সে চিন্তাই বাবার মাথায় সব সময় ঘুরপাক খায়। 

তাইতো আমার বাবা আমার কাছে একজন সুপার হিরো। আমি আমার বাবার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ূ কামনা করছি। যেন সারাটি জীবন আমাদের বট বৃক্ষের মত ছায়া দিয়ে যান। আমি আমার বাবাকে দেখেছি আমাকে মানুষ করার জন্য কত কষ্ট করেছেন, এখনও করে যাচ্ছেন। আমার একমাত্র বোনকে বিয়ে দিয়েছেন। তখন নিজে একটাও খরচ করার মত সামর্থ ছিলো না। বাবা সবকিছু একাই পুষিয়ে নিয়েছেন। আমি বড় হয়েছি। এখনও আমাকে ভারি কোন কাজ করতে দেন না। 

মনে পড়ে, যখন ক্লাস ওয়ানে পড়তাম। তখন বন্যার সময় ছিলো। আমাদের বাড়িটা একটু নিচু জায়গায়। বাড়ির উঠোনে কোমর বরাবর পানি ছিল। সকাল বেলা স্কুলের সময় হয়েছে। আমার বাবা আমাকে নিজের কাঁধে করে, নিজে পানিতে ভিজে আমাকে শুকনোতে নিয়ে গেছেন। কারণ উনি তো বাবা। তিনি চেয়েছেন আমি যাতে পানিতে না ভিজি। পড়ালেখা করে মানুষের মত মানুষ হই। 

আমার মা এখন গল্প করেন। যখন একেবারেই ছোট ছিলাম। আমার সমস্ত শরীর পঁচে গিয়েছিল। কলা পাতার দিয়ে আমাকে সবাই কুলে নিতেন। সে সময় আমি ভাল হওয়ার জন্য, আমার বাবা এমন কোন ডাক্তার নেই যে আমাকে চিকিৎসা করান নি। 

আমি তখনও ছোট৷ কলা খুব বেশি খেতাম। কলার ছড়ি আমার বালিশের পাশে কিনে রেখে দিতেন আমার বাবা। যাতে একটু পর পর আমি কলা খেতে পারি। আমি কলাকে নাকি 'লালা' বলে ডাকতাম। তাইতো কলা এখনও আমার খুব বেশি প্রিয়। 

বাবাকে নিয়ে কত লিখব। যত লিখব শেষ হবে না। কত স্মৃতি বাবাকে নিয়ে। একজন বাবাকে নিয়ে সন্তান যদি সারাজীবন লিখতে থাকে তাহলে তার লিখা শেষ হবে না। সবার প্রতিটি অনুরোধ বাবাকে কখনো কষ্ট দিবেন না। 

এখন ধীরে ধীরে বড় হচ্ছি। বাবা কি জিনিস বুঝতে পারতেছি। বাবার কিছু হলে নিজেরও কষ্ট লাগে। আমার বাবা কয়েকদিন থেকে অসুস্থ। রাত হলে অসুস্থতা বেড়ে যায়। আমি আমার প্রিয়, সুপার হিরো বাবার জন্য সকলের কাছে দোয়া প্রার্থনা করছি। আল্লাহ যেন আমার বাবাকে সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ূ দান করেন। বাবা দিবসে সকল বাবার প্রতি রইল শুভকামনা ও শ্রদ্ধা। বিশ্বের সকল বাবা ভালো থাকুক, সুস্থ থাকুক, এটাই প্রত্যাশা।