গোলাপগঞ্জে যুবকের ইটের আঘাতে বৃদ্ধার মৃত্যু, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার


নিজস্ব প্রতিবেদক: গোলাপগঞ্জে ছেলের ঝগড়া থামাতে গিয়ে ইটের আঘাতে আওয়ারুন নেছা (৬৫) নামের এক বৃদ্ধা নিহতের ঘটনায় জড়িত প্রধান আসামী সুমন আহমদ (২৬)কে চট্রগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশের একটি দল। 

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) ভোরে চট্টগ্রামের খুলশী থানা এলাকা থেকে আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

গ্রেপ্তারকৃত আসামি বাঘা সোনারটুল গ্রামের ওয়াজিদ আহমদের পুত্র। 

ঘটনার পর বৃদ্ধার ছেলে সাকেল আহমদ বাদি হয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা (মামলা নং- ১৩) দায়ের করেন।

পুলিশ জানায়, গত সোমবার আনুমানিক সাড়ে ৭টার দিকে সিএনজি অটোরিকশা চালক ছমির উদ্দিন (১৮) তার গাড়ি নিয়ে পরগনা বাজারে যাওয়ার পথে সড়কে গর্ত থাকার কারণে গাড়ির চাকা গর্তে পড়ে ময়লা পানি পথচারী সুমন আহমদের (২৬) শরীরে পড়ে৷ 

তখন সুমন আহমদ সিএনজি অটোরিকশা চালক ছমির উদ্দিনকে গাড়ি থেকে নামিয়ে চর থাপ্পড় মারে। মঙ্গলবার ২৮ জুন আনুমানিক সাড়ে ৬টার দিকে এখলাছপুর ব্রিজের উপর আবারো তাদের দেখা হয়।

দেখা হওয়ার এক পর্যায়ে সুমন আহমদ আবারো ছমির উদ্দিনকে গালাগালি করে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। হাতাহাতির এক পর্যায়ে ছমির উদ্দিনের মা আওয়ারুন নেছা বাড়ি থেকে বের হয়ে ঝগড়া থামাতে গেলে সুমন আহমদ রাস্তা থেকে একটি ইট তুলে আওয়ারুন নেছার বুকে আঘাত করে পালিয়ে যায়। ইটের আঘাতে আওয়ারুন নেছা গুরুতর আঘাত প্রাপ্ত হোন। 
এসময় আওয়ারুন নেছার আত্মীয়-স্বজন তাকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

গোলাপগঞ্জ মডেল থানার এসআই ফয়জুল করিম আসামিকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন- 'আজ ভোরে পুলিশ চট্টগ্রামের খুলশী থানা এলাকা থেকে আসামিকে গ্রেপ্তার করে। চট্টগ্রাম থেকে আসামিকে গোলাপগঞ্জ থানায় নিয়ে আসা হচ্ছে।'