পুলসিরাত পার হলেই মিলবে ক্লিনিকের সেবা !


ডেস্ক রিপোর্ট : হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার স্নানঘাট ইউনিয়নের প্রায় ৩৫ হাজার জনগণকে স্বাস্থ্যসেবা নিতে পার হতে হয়ে পুলসিরাতে মতো ঝুকিপূর্ণ বাঁশের সাঁকো।

প্রায় তিন বছর আগে এই স্নানঘাট কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করা হলেও সেখানে যাতায়াতের নেই কোনো সুব্যবস্থা। ক্লিনিকটি স্নানঘাট ইউনিয়ন পরিষদ এবং স্নানঘাট বাজারের একটা খালের পাশে অবস্থিত।

সরেজমিন দেখা যায়, ঝুকিপূর্ণ দুই বাঁশের ওপর ভর করে ক্লিনিক যেতে হয় সেবাগ্রহীতাদের।

স্থানীয়দের তথ্যমতে জানা যায়, ক্লিনিক নির্মাণের তিন বছর অতিবাহিত হলেও ক্লিনিকের সংযোগ সড়ক এখনো করা হয়নি। এ নিয়ে স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

ক্লিনিকে সেবা নিতে আসা আমিনা বেগম ও ইন্দ্রজিৎ দাস জানান, তিন বছর ধরে অনেক কষ্ট করে ক্লিনিক থেকে আমার ছোট শিশু মেয়েকে কোলে নিয়ে ওষুধ আনতে হয়।

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, তিন বছরে এলাকার অনেক শিশু ক্লিনিকে যাওয়ার সময় আহত হয়েছে। গর্ভবতী নারীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাঁকোটি পার হন। কারণ পা পিছলে গেলেই পড়তে হবে খালে।

স্নানঘাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পল্লী চিকিৎসক সজল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, আমাদের ইউনিয়নের মানুষদের লক্কড়ঝক্কড় বাঁশের সাঁকো পার হয়ে ক্লিনিকের সেবা নিতে হয়। নতুন ভবন হয়েছে প্রায় তিন বছর কিন্তু সড়ক থেকে সংযোগ ব্রিজ আর হলো না।

এ বিষয়ে স্থানীয় স্নানঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ তোফাজ্জল হক রাহিন বলেন, চেয়ারম্যান হওয়ার পরে সংযোগ ব্রিজ না থাকায় গর্ভবতী ও বয়স্কদের আসা যাওয়ার জন্য বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করি।

তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সংযোগ ব্রিজ না থাকায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সিভিল সার্জন বরাবর বারবার বলেছি সংযোগ ব্রিজের টেন্ডার দেওয়ার জন্য। তবে কেন ব্রিজ হচ্ছে না তা আমার জানা নেই।

বাহুবল উপজেলা প্রকৌশলী রাকিব হাসান জানান, জাইকা প্রজেক্টের মাধ্যমে ফেব্রুয়ারিতে কাজ করা হবে, যদি না হয় তবে পিআইর মাধ্যমে খুবই দ্রুত কাজ করা হবে।