সুনামগঞ্জে প্রেমের বিয়ে, বাসর রাতেই স্বামীর মৃত্যু


নিজস্ব প্রতিবেদক: সুনামগঞ্জে প্রেম করে বিয়ের বাসর রাতেই গোছল করতে গিয়ে পুকুরের পানিতে ডুবে প্রেমিক স্বামী মাকসুদুর রহমান জিমাম (২০) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে আটটার দিকে সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার পান্ডারগাও ইউনিয়নের পলিরচর গ্রামের  জনৈক আকবর আলীর পুকুরের পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়।
 
নিহত মাকসুদুর রহমান জিমাম সুনামগঞ্জ সদর থানার আরফিন নগর গ্রামের মো. মুজিবুর রহমানের ছেলে। 
 
পুলিশ সুত্রে জানা যায়, সুনামগঞ্জ সদর থানার আরফিন নগর গ্রামের মো. মজিবুর রহমানের ছেলে মাকসুদুর রহমান জিমামের সাথে ছাতক থানার পাটিরভাগ গ্রামের আব্দুল মছব্বিবের মেয়ে তাছলিমা বেগম (২০) এর সাথে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। গত বৃহস্পতিবার ভোর ৬ টার দিকে প্রেমিক মাকসুদুর রহমান জিমাম তার প্রেমিকা তাছলিমা বেগমকে বিয়ে করার জন্য নিজ বাড়ি থেকে নিয়ে আসে সকাল ১০টার দিকে পাগলা বাজারের একজন ইমাম দিয়ে তাদের বিয়ে পড়ানো হয়।
 
বিয়ে পড়ানো শেষে নবাগত স্বামী স্ত্রী ডাবর এলাকায় নৌকা ঘাটে গিয়ে দোয়ারাবাজার উপজেলার পান্ডারগাও ইউনিয়নের পলিরচড় গ্রামের মৃত মোশাহিত আলীর পুত্র জনৈক নৌকার মাঝি আমির আলী ও তার  ছেলে আলী মার্জানের সাথে পরিচয় হয়ে তাদের বাড়িতে থাকার জন্য চলে আসে।
 
শুক্রবার রাত ৮ঘটিকার সময় রাতের খাওয়া দাওয়া শেষে রাত সাড়ে ৮টার দিকে আমির আলীর প্রতিবেশি জনৈক আকবর আলীর পুকুরের ঘাটে আমির আলীর ছেলে আলী মার্জানকে (১০) সঙ্গে নিয়ে মাকসুদুর রহমান জিমামবগোসল করতে যায়। গোসল শেষে ঘাটে উঠার সময় মাকসুদুর রহমান জিমাম হোচট খেয়ে পুকুরের পানিতে পড়ে ডুবে যায়। আশ পাশের লোকজন আলী মার্জনের চিৎকার শুনে পুকুরের পানিতে খুঁজে রাত ৯টার দিকে মাকসুদুর রহমান জিমামকে। পুকুর থেকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেন। নিহত মাকসুদুর রহমান জিমাম ছাতক সিমেন্ট ফেক্টরিতে কাজ করতেন।

দোয়ারাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ দেবদুলাল ধর সত্যতা নিশ্চিত করে জানান থানার এস আই মিজানুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।