সমাবেশ ঘিরে পরিবহন ধর্মঘটে নাকাল সিলেটবাসী


ডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপির সমবেশ আয়োজনের মধ্যে সিলেট থেকে দূরপাল্লার কোনো বাস না ছাড়ায় যাত্রীদের ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে।

সিলেট থেকে শুক্রবার মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জের বাস ছাড়েনি; বন্ধ থাকে দূরপাল্লার বাস চলাচলও। তবে সিলেটের উপজেলাগুলোতে বাস চলাচল করেছে।

সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজারে শুক্রবার সকাল থেকে পরিবহন ধর্মঘট শুরু হওয়ায় ওই জেলাগুলো থেকে কোনো বাস সিলেটে আসেনি, কোনো বাস ছেড়েও ওইসব জেলায় যায়নি।

সিএনজি চালিত অটোরিকশায় গ্রিল সংযোজন, রেজিস্ট্রেশনবিহীন অটোরিকশা চলাচল বন্ধ করা ও নতুন করে অটোরিকশার নিবন্ধন না দেওয়ার দাবিতে শনিবার সিলেট জেলা বাস মালিক সমিতি ধর্মঘট ডেকেছে। শুক্রবার তাদের কোনো কর্মসূচি নেই।

শনিবার সিলেট নগরীর সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে মাঠে হাজার হাজার নেতা-কর্মী-সমর্থক উপস্থিত হয়েছেন।

বিকালে সরেজমিনে সিলেটের কুমারগাঁও ও কদমতলী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে বাসগুলো অলস দাঁড়িয়ে আছে। সকাল থেকেই এসব বাস দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। 

সিলেট থেকে মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জে যাতায়াতকারী হবিগঞ্জ-সিলেট এক্সপ্রেস পরিবহনের বাসও বন্ধ রয়েছে। ঢাকায় যাত্রী পরিবহনকারী এনা, শ্যামলী ও হানিফ পরিবহনের বাস কাউন্টার বন্ধ। 

টার্মিনালে এসেছেন কানাইঘাট থেকে করিম উদ্দিন। তিনি কাজ করেন চট্টগ্রামে। বৃহস্পতিবার রাতে ফোন এসেছে – কাজে গিয়ে যোগ দিতে হবে। অনেকক্ষণ বসে থাকার পরও কোনো গাড়ি পাননি তিনি।

সমাবেশ ঘিরে পরিবহন ধর্মঘটে নাকাল সিলেটবাসী
একই অবস্থা সুনামগঞ্জের আরিফ আহমদের।

আরিফ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, “আমাদের কথা কেউ চিন্তা করে না। যেতে না পারলে মালিকের লস হবে।”

ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চারদিন আগে রোগী নিয়ে এসেছিলেন সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার হুমায়ূন মিয়া। হাসপাতালে রোগী রেখে জরুরি প্রয়োজনে বাড়ি যেতে কুমারগাঁও বাসস্ট্যান্ডে এসে দেখেন গাড়ি চলছে না।

সিলেট সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. জিয়াউল কবির পলাশ বলেন, “আমরা দাবি আদায়ে শনিবার ধর্মঘট ডেকেছি। আজকে আমাদের কেনো কর্মসূচি নেই।”

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদ, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনসহ নানা দাবিতে দলটি আট বিভাগ ও দুই সাংগঠনিক বিভাগে সমাবেশ করছে। 

ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম, ময়মসিংহ, খুলনা, রংপুর, বরিশাল ও ফরিদপুরে (সাংগঠনিক বিভাগ) সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ময়মনসিংহ ছাড়া আর সব সমাবেশের সময় পরিবহন ধর্মঘট ডাকা হয়েছিল। ময়মনসিংহে ধর্মঘট না থাকলেও যান চলাচল করেনি।

সিলেটের সমাবেশের আগে বিভাগের চার জেলা সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জে ধর্মঘট ডাকা হয়েছে। তবে ধর্মঘটের ভেতর শুক্রবার সন্ধ্যার মধ্যে নগরীর সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ নেতা-কর্মীতে পূর্ণ হয়ে গেছে।